বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সংজ্ঞা অনুযায়ী জীবনের ১০-১৯ বৎসর সময়টাই হলো কৈশোর বা বয়ঃসন্ধিকাল। শৈশব ও যৌবনের এই সন্ধিক্ষণে ছেলেমেয়েদের শারিরীক ও মানসিক পরিবর্তন হয় ও তারা প্রজননক্ষম হয়।
হোম - নীড়পাতা / আমাদের সম্পর্কে
পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে সারাদেশে পরিবার পরিকল্পনা সেবাসহ মা, শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের সেবা, প্রজননস্বাস্থ্যসেবা, প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিচর্যা ও পুষ্টিসেবা দিয়ে আসছে। এমসিএইচ সার্ভিসেস ইউনিট অর্থাৎ ম্যাটারনাল এন্ড চাইল্ড হেলথ সার্ভিসেস ইউনিট পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের একটি ইউনিট। সারাদেশে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এমসিএইচ ইউনিট, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ও স্যাটেলাইট ক্লিনিক এর মাধ্যমে এমসিএইচ সার্ভিসেস ইউনিট নি¤েœ উল্লেখিত সেবাসমূহ প্রদান করে থাকে-
    ১) অনুর্ধ পাঁচ বৎসর বয়সী শিশুদের গ্রোথ মনিটরিং সহ স্বাস্থ্যসেবা
    ২) কিশোর-কিশোরীদের স্বাস্থ্যসেবা
    ৩) গর্ভবতী মায়েদের গর্ভকালীন সেবা, প্রসব সেবা ও প্রসব পরবর্তী সেবা
    ৪) জরুরী প্রসূতি সেবা
    ৫) পরিবার পরিকল্পনা সেবা (জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি ও কাউন্সিলিং)
    ৬) মাসিক নিয়মিতকরণ সেবা (এমআর)
    ৭) গর্ভপাত পরবর্তী সেবা
    ৮) জরুরী গর্ভনিরোধক বড়ি
    ৯) প্রসব পরবর্তী অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ প্রতিরোধে ট্যাবলেট মিসোপ্রস্টোল বিতরণ ও প্রসবের তৃতীয় ধাপে সক্রিয় ব্যবস্থাপনা
    ১০) শিশু, কিশোরী, গর্ভবতী মা ও দুগ্ধদানকারী মায়েদের পুষ্টিসেবা
    ১১) প্রজননতন্ত্রের প্রদাহ বা ইনফেকশন, যৌনবাহিত রোগের চিকিৎসা
    ১২) সাধারণ রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা

সেবাকেন্দ্রগুলো ছাড়াও সারাদেশে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের প্রায় ২৩০০০ মাঠকর্মী অর্থাৎ পরিবার কল্যাণ সহকারী বা এফডব্লিউএ রয়েছে যারা বাড়ি পরিদর্শনের মাধ্যমে পরিবার পরিকল্পনা সামগ্রী (বড়ি, কনডম), আয়রন-ফলিক এসিড বড়ি পৌঁছে দেয় এবং গর্ভবতী ও প্রসূতি মা, কিশোর-কিশোরী ও বাড়ির সিদ্ধান্ত গ্রহণকারীদের তথ্য দিয়ে সুস্থ জীবনযাপনে ও সেবা নিতে উদ্বুদ্ধ করে থাকে।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সেবাকেন্দ্রসমূহ:
    (১) জেলা পর্যায়ে- মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র বা এমসিডব্লিউসি:
    এই কেন্দ্রগুলো থেকে দুজন মেডিকেল অফিসার সহ পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা সেবা প্রদান করে থাকে। সিরাজগঞ্জ, ঠাকুরগাঁ, কক্সবাজার, মৌলভীবাজার, পটুয়াখালী, বরগুনা, খাগড়াছড়ি, কিশোরগঞ্জ, ভোলা, জামালপুর, খুলনা, নীলফামারী এই ১২ (বারো) টি জেলায় মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রে কৈশোর-বান্ধব স্বাস্থ্যসেবা চালু করা হয়েছে। এই কেন্দ্রগুলো থেকে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত সেবাপ্রদানকারীগণ বন্ধুত্বপূর্ণ ভাবে ১০-১৯ বৎসর বয়সী কিশোর-কিশোরীদের স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা প্রদান করে থাকে।

    (২) উপজেলা পর্যায়ে:
      (ক) মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র বা এমসিডব্লিউসি- এই কেন্দ্রগুলো থেকে দুজন মেডিকেল অফিসার সহ পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা সেবা প্রদান করে থাকে।

      (খ) উপজেলা এমসিএইচ ইউনিট- উপজেলা পর্যায়ে অধিকাংশ এমসিএইচ ইউনিট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর ভিতর কয়েকটি কামরা নিয়ে গঠিত। এখানে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরাধীন চিকিৎসক, পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা সেবা প্রদান করে থাকেন।

      (৩) ইউনিয়ন পর্যায়ে- ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র- ইউনিয়ন পর্যায়ে পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র রয়েছে যেগুলোর অধিকাংশই দোতলা। একতলা থেকে সেবা প্রদান করা হয় আর দোতলায় সেবাপ্রদানকারীদের বাসস্থান রয়েছে। এখানে একজন উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার ও একজন পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা সেবা প্রদান করে থাকে। সারা বাংলাদেশে প্রায় ৪৫০০ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলোর মধ্য থেকে ৩৫০০ এর বেশী কেন্দ্রে ২৪/৭ নরমাল ডেলিভারী সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে।

      (৪) গ্রাম পর্যায়েÑস্যাটেলাইট ক্লিনিক-একটি ইউনিয়নে যে ওয়ার্ডে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র রয়েছে সে ওয়ার্ড বাদে অন্য ওয়ার্ডগুলোতে স্যাটেলাইট ক্লিনিক অনুষ্ঠিত হয়। গ্রামের একজন প্রভাবশালী ও জনপ্রিয় ব্যক্তির বাড়ি স্যাটেলাইট ক্লিনিক আয়োজনের জন্য বাছাই করা হয়। এভাবে একটি ইউনিয়নে ৮টি বাড়ি নির্বাচন করা হয় স্যাটেলাইট ক্লিনিকের জন্য। ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে কর্মরত পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা মাসে ৮টি স্যাটেলাইট ক্লিনিক করেন অর্থাৎ প্রতিটি স্যাটেলাইট ক্লিনিকে মাসে এক বার যেয়ে সেবা প্রদান করেন। এতে করে যাদের বাড়ি থেকে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র দূরে তারা সহজেই বাড়ির কাছে স্যাটেলাইট ক্লিনিক থেকে সেবা গ্রহণ করতে পারেন।
 
হোম / নীড়পাতা | বহুল জিজ্ঞাসিত প্রশ্নমালা | যোগাযোগ | ওয়েব মেইল
Courtesy :
United Nations Population Fund